পৃষ্ঠাসমূহ / Pages

SHIFTED SHIFTED SHIFTED SHIFTED



THIS BLOG HAS BEEN SHIFTED TO WORDPRESS

AT THE FOLLOWING ADDRESS





Existence of God !!



 Something interesting regarding those who believe and those who don't believe in God ! It stimulates our lateral thinking. (Please open it in Mozilla Firefox browser to get the Bengali correctly)


Post has been shifted to  বিচিত্রা at http://bichitraa.wordpress.com alongwith the Blog.

"Drink to me only with"- an immortal love song (with lyrics)


Lyric
Drink to me only with thine eyes, And I will pledge with mine;
Or leave a kiss within the cup And I'll not ask for wine.
The thirst that from the soul doth rise Doth ask a drink divine;
But might I of Jove's nectar sup, I would not change for thine.

I sent thee late a rosy wreath, Not so much honouring thee
As giving it a hope that there It could not withered be;
But thou thereon didst only breathe, And sent'st it back to me;
Since when it grows, and smells, I swear, Not of itself but thee!

By Ben Jonson in his poem "Song to Celia ". in 1616)
************


এই গানটির দ্বারা অনুপ্রানিত হয়ে ১৮৮৫ সালে রবীন্দ্রনাথ লিখলেন "কতবার ভেবেছিনু আপনা ভুলিয়া" ।

দুটি গানকে একটি ভিডিওতে উপস্থাপিত করলাম। দুটি গানই স্বাগতালক্ষী গেয়েছেন। গানদুটি শুনুন। নীচে Lyric দেওয়া হল :

কতবার ভেবেছিনু আপনা ভুলিয়া
তোমার চরণে দিব হৃদয় খুলিয়া...
চরণে ধরিয়া তব কহিব প্রকাশি
গোপনে তোমারে, সখা, কত ভালোবাসি।
ভেবেছিনু কোথা তুমি স্বর্গের দেবতা,
কেমনে তোমারে কব প্রণয়ের কথা।
ভেবেছিনু মনে মনে দূরে দূরে থাকি
চিরজন্ম সঙ্গোপনে পূজিব একাকী---
কেহ জানিবে না মোর গভীর প্রনয়,
কেহ দেখিবে না মোর অশ্রুবারিচয়।
আপনি আজিকে যবে শুধাইছ আসি,
কেমনে প্রকাশি কব কত ভালবাসি।।

পর্য়ায় ~ প্রেম ও প্রকৃতি / রাগ~ মিশ্র ছায়ানট / রচনাকাল ~ ১৮৮৫

কাজলা দিদি

 আমরা ছাত্রাবস্থায় কিছু কবিতা পড়েছিলাম, কিছু কিছু এখনও মনে গেঁথে আছে। সেরকমই একটা কবিতা এখানে দিলাম, আশা করি আপনাদের পুরানো স্মৃতি উস্কে দেবে, হয়ত ভাল লাগবে ---

বাঁশবাগানের মাথার উপর চাঁদ উঠেছে ওই--
মাগো, আমার শোলক-বলা কাজলা দিদি কই ?
পুকুর ধারে, নেবুর তলে     
থোকায় থোকায় জোনাই জ্বলে,--
ফুলের গন্ধে ঘুম আসেনা, একলা জেগে রই;
মাগো, আমার কোলের কাছে  কাজলা দিদি কই?


সে দিন হতে দিদিকে আর কেনই বা না ডাকো,
দিদির কথায় আঁচল দিয়ে মুখটি কেন ঢাকো ?
খাবার খেতে আমি যখন  
দিদি বলে ডাকি  তখন,
ওঘর থেকে কেন মা আর  দিদি আসেনাকো,
আমি ডাকি, - তুমি কেন চুপটি করে থাকো ?

বল মা দিদি কোথায় গেছে, আসবে আবার কবে?
কাল যে আমার নতুন ঘরে পুতুল বিয়ে হবে!
দিদির মতন ফাঁকি দিয়ে
আমিও যদি লুকাই গিয়ে--
তুমি তখন একলা ঘরে কেমন করে রবে?
আমিও নাই, দিদিও নাই - কেমন মজা হবে!


ভুঁইচাঁপাতে ভরে গেছে শিউলি গাছের তল,
মাড়াস নে মা পুকুর থেকে আনবি যখন জল;
ডালিম গাছের ডালের ফাঁকে
বুলবুলিটি  লুকিয়ে  থাকে,
উড়িয়ে তুমি দিয়ো না মা  ছিঁড়তে গিয়ে ফল;--
দিদি এসে শুনবে যখন, বলবে কি মা বল!

বাঁশবাগানের মাথার উপর চাঁদ ঊঠেছে ওই--
এমন সময়,মাগো,আমার কাজলা দিদি কই?
বেড়ার ধারে পুকুর পাড়ে
ঝিঁঝিঁ ডাকে ঝোপে ঝাড়ে ;
নেবুর গন্ধে ঘুম আসেনা -তাইতো জেগে রই;-
রাত হল যে,মাগো, আমার কাজলা দিদি কই?
By : যতীন্দ্রমোহন বাগচী